নাটোরের গুরুদাসপুরের তোজাম্মেল হক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা নন তবু পাচ্ছেন ভাতা, কোটা ব্যবহার করে ছেলে পুলিশ অফিসার

Published: শনিবার, জানুয়ারি ৪, ২০২০ ৯:০৪ অপরাহ্ণ   |   Modified: শনিবার, জানুয়ারি ৪, ২০২০ ৯:০৪ অপরাহ্ণ
 

স্বাধীন খবর ডট কম


সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার : অভিযোগ : নাটোরের গুরুদাসপুরের তোজাম্মেল হক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা নন তবু পাচ্ছেন ভাতা, কোটা ব্যবহার করে ছেলে আজ বড় পুলিশ অফিসার। নাটোর জেলার গুরুদাসপুর উপজেলার মোজাম্মেল হক নামক এক ব্যক্তি প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা না হয়েও মুক্তিযোদ্ধা ভাতা নিচ্ছেন এবং সকল সুবিধা গ্রহন করছেন আর সেই সুবাদে তার সন্তান মুক্তিযোদ্ধা কোটা ব্যবহার করে অবৈধভাবে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের চোখ ফাঁকি দিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরি নিয়েছেন মর্মে বিস্তর অভিযোগ উঠেছে।
কথায় আছে, বিচারের বাণী নিভৃতে কাঁদে- অবৈধ টাকা আর অদৃশ্য ক্ষমতায় কি-না হয়! অপরাধী তার অপরাধকে সকলের চোখে ধুলো দিয়ে নিরপরাধ সাজতেও চেষ্টা করে আবার সফলও হয়।
অভিযোগে জানা গেছে, নাটোর জেলার গুরুদাসপুর উপজেলাধীন নওপাড়া গ্রামের মৃত ছেফাতুল্লা প্রামাণিক এর ছেলে মোঃ তোজাম্মেল হক, যার মুক্তিযোদ্ধো গেজেট বই নং-৩১,৩১৮, বাংলাদেশ গেজেট ২০১১-এর গেজেট ক্রমিক নং-১৩৩২। অথচ তিনি কখনও মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না বা তার মুক্তিযোদ্ধা সংক্রান্ত প্রকৃত কোনো কাগজ, প্রমাণ বা দলিল নেই। শুধুমাত্র অবৈধ উপায়ে ও সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের চোখে ধুলো দিয়ে তিনি হাতিয়ে নিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধার সনদ। যার সুবাদে গ্রহন করছেন ভাতা সহ অন্যান্য সুবিধাদী।
মুক্তিযোদ্ধা না হলেও মুক্তিযোদ্ধা গেজেটে আজ তার নাম রয়েছে স্পষ্টভাবে। যা স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রকৃতি মুক্তিযোদ্ধাদের এবং বর্তমান সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে কলংক তিলক হয়ে দাঁড়িয়েছে।
অবৈধ টাকা আর অদৃশ্য ক্ষমতায় কি-না হয় এমন কথার বাস্তবায়ন হচ্ছে। অথচ উক্ত অভিযোগের বারবার তদন্ত ও অভিযোগপত্রে মাননীয় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রীর কলমের কালিতে ডিজি মহোদয় ব্যবস্থা নিন এমন নির্দেশ বারবার দিলেও মাননীয় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রীর নির্দেশ বাস্তবায়ন হচ্ছে না। যা মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের মাথায় কলংক তিলক বয়ে বেড়ানো হচ্ছে বললে একটুও ভুল হবেনা।
আর এই সুবাদে একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা না হয়েও মোজাম্মেল হক অন্যান্য প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের প্রতি চালিয়ে যাচ্ছেন অবৈধ ক্ষমতার অপব্যবহার আর নির্যাতন।
এছাড়াও উপরোক্ত অভিযোগসহ মামলা, সন্তানকে কোটা সংক্রান্ত মিথ্যা তথ্য দিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে চাকরিতে যোগদান এবং উক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দূর্নীতি, অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতি বিস্তর অভিযোগ পাওয়া গেছে।
উক্ত অভিযোগ সমূহের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য তদন্ত চলছে। যার সত্যতা যাচাই করে পরবর্তীতে সংবাদ প্রকাশ করা হবে। (চলমান..)