বটিয়াঘাটায় অসময়ের আম্রুতা কালো জাতের তরমুজ বাম্পার ফলনে কৃষকের আনন্দের হাঁসি

Published: বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০ ৪:২৩ অপরাহ্ণ   |   Modified: বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০ ৪:২৩ অপরাহ্ণ
 

স্বাধীন খবর ডট কম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মহিদুল ইসলাম( শাহীন) বটিয়াঘাটা খুলনা।

খুলনা বটিয়াঘাটা উপজেলায় অসময়ের কালো জাতের আম্রুতা তরমুজ ব্যাপক চাষ হয়েছে। অসময়ে তরমুজের বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকের হাঁসি যেন থামছেইনা। অসময়ের কালো রংয়ের তরমুজ চাষ করে অনেক কৃষক আনন্দে দিশেহারা। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ রবিউল ইসলামের আন্তরিকতায় এবং কৃষিবীজ কোম্পানির সহায়তায় ও কাক ডাকা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ইউনিয়ন, ওয়ার্ড বা গ্রামাঞ্চলের খালবিলে উপ সহকারী কৃষি অফিসারদের সার্বিক পদচারণায় এই বাম্পার ফলন কৃষকরা উপভোগ করতে পেরেছেন বলে শত শত কৃষকের ধারণা। চলতি বছরে বটিয়াঘাটা উপজেলায় ২০/২৫ হেক্টর জমির ঘেরের ভেড়ি,আইল বা মাচায় এই তরমুজ চাষ হয়েছে। যাহা প্রতি হেক্টরে ৩৫ মেট্রিকটন উৎপাদন হবে। এই তরমুজের জীবন কাল ৮৫/৯০ দিন। প্রতি বিঘা জমিতে খরচ অনুঃ ২০/২৫ হাজার টাকা এবং বিক্রি হবে ৫০/৬০ হাজার টাকা। এই তরমুজের ওজন ৩/৪ কেজি, যার বাজার মুল্য ১৫/১৬ শ টাকা মন। উপজেলায় গঙ্গারামপুর,বটিয়াঘাটা সদর ও সুরখালী ইউনিয়নে এই তরমুজ চাষ হয়েছে। গঙ্গারামপুর ইউনিয়নের মোট ২০/২৫ জন কৃষক তরমুজ চাষ করেছেন। বয়ারভাঙ্গার কৃষক মৃনাল,মসিন,হরিতাস মন্ডল জানান, উপসহকারী কৃষি অফিসার আঃ গফফার গাজীর সার্বিক পরামর্শে আমরা অসময়ের তরমুজ চাষে আগ্রহ প্রকাশ করি এবং ভালো ফলন হয়েছে। অন্যদিকে সুরখালী ইউনিয়নে ৪০/৪৫ জন কৃষক পৃথক পৃথক ভাবে ২০/২৫ হেক্টর জমিতে এই তরমুজ চাষ করেছে। তার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য সুখদাড়ার কৃষক জামান আহমেদ জানান,জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত উপসহকারী কৃষি অফিসার সরদার আব্দুল মান্নান স্যারের পরামর্শে এবং তার সঠিক দিক নির্দেশনায় আমাদের এলাকায় প্রায় ৪০/৫০ জন কৃষক অসময়ের তরমুজ চাষ করেছে। আমি নিজে প্রায় ২৭ বিঘা জমির ঘেরের ভেড়িতে ও মাচায় কালো জাতের এই তরমুজ চাষ করি। আশা করি আমার তরমুজ বাগান ৪/৫ লাখ টাকা বিক্রি হবে। অসময়ে তরমুজ লাগিয়ে এতো লাভ আগে কখনও দেখিনি আশা করি আগামী বছরে শত শত বিঘা জমিতে এই তরমুজ চাষ হবে। সার্বিক বিষয় উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ রবিউল ইসলাম বলেন,প্রথমে ধন্যবাদ জানাই কৃষি বান্ধব সরকার প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও কৃষি মন্ত্রী কৃষিবিদ ড,আঃ রাজ্জাক মহোদয়কে। কৃষকদের জন্য অসময়ের তরমুজ চাষসহ বিভিন্ন ধরনের নতুন নতুন আবিষ্কার আমাদের মাধ্যমে কৃষকের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য। তবে গত বছরের তুলনায় এবছর কয়েকগুণ বেশি তরমুজ চাষ হয়েছে আশা করি আগামিতে আরে হাজার হাজার কৃষক কালো জাতের তরমুজ চাষ করবে। বটিয়াঘাটা খুলনা।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
 
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com